কিডনি সমস্যা বা কিডনির ভালো-মন্দ নিয়ে চিকিৎসকরা কি বলছেন।

কিডনি সমস্যা বা কিডনির ভালো-মন্দ নিয়ে চিকিৎসকরা কি বলছেন।

কিডনির কার্যকারিতা ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

কিডনি-সমস্যা-বা-কিডনির-ভালো-মন্দ-নিয়ে-চিকিৎসকরা-কি-বলছেন

কিডনি

কিডনি সমস্যা: কিডনি মানবদেহের একটি অপরিহার্য অঙ্গ যা রক্ত ​​থেকে বর্জ্য পদার্থ এবং অতিরিক্ত তরল ফিল্টারিং এবং অপসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তারা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে, ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং বিভিন্ন শারীরিক ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে এমন হরমোন তৈরি করতে সহায়তা করে।
মানবদেহে সাধারণত দুটি কিডনি থাকে, যা মেরুদণ্ডের দুই পাশে, পাঁজরের খাঁচার ঠিক নীচে অবস্থিত। প্রতিটি কিডনি প্রায় একটি মুষ্টির আকারের এবং এতে নেফ্রন নামক প্রায় এক মিলিয়ন ক্ষুদ্র ফিল্টার থাকে। যখন কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা সঠিকভাবে কাজ করতে ব্যর্থ হয়, তখন এটি দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ, কিডনিতে পাথর এবং কিডনি ব্যর্থতা সহ গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে।

কিডনি সমস্যা বা কিডনির ড্যামেজের লক্ষণ:

কিডনির ড্যামেজের লক্ষণগুলি অন্তর্নিহিত কারণ এবং ক্ষতির পরিমাণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। যাইহোক, কিডনি সমস্যা কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

ফোলা: কিডনির ক্ষতির কারণে শরীরে তরল জমা হতে পারে, যার ফলে হাত, পা, গোড়ালি বা মুখে ফুলে যেতে পারে।

ক্লান্তি: কিডনির ক্ষতি শরীরে টক্সিন জমা করতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি, দুর্বলতা এবং শক্তির অভাব দেখা দেয়।

প্রস্রাবের সমস্যা: কিডনির ক্ষতির কারণে প্রস্রাবের ধরণে পরিবর্তন হতে পারে, যেমন ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি, প্রস্রাবের আউটপুট হ্রাস বা প্রস্রাবে রক্ত।

পিঠে ব্যথা: কিডনির ক্ষতি হলে পিঠে, পাশে বা পেটে ব্যথা হতে পারে।

উচ্চ রক্তচাপ: কিডনির ক্ষতির কারণে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে যা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন।

বমি বমি ভাব এবং বমি: কিডনির ক্ষতির কারণে বমি বমি ভাব, বমি এবং ক্ষুধা হ্রাস হতে পারে।

মুখে ধাতব স্বাদ: কিডনির ক্ষতি হলে মুখে ধাতব স্বাদ বা দুর্গন্ধ হতে পারে।

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে মূল্যায়ন এবং চিকিত্সার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। কিডনির ক্ষতির প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং চিকিত্সা আরও জটিলতা প্রতিরোধ করতে এবং ফলাফল উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে।

কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার:

কিডনি রোগ একটি বিস্তৃত শব্দ যা কিডনিকে প্রভাবিত করে এমন একটি পরিসীমা অন্তর্ভুক্ত করে, যার মধ্যে রয়েছে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ, তীব্র কিডনি আঘাত, কিডনিতে পাথর এবং সংক্রমণ। কিডনি রোগের উপসর্গ এবং প্রতিকার নির্দিষ্ট ধরনের এবং অবস্থার তীব্রতার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। যাইহোক, এখানে কিডনি রোগের কিছু সাধারণ লক্ষণ এবং প্রতিকার রয়েছে:

কিডনি রোগের লক্ষণ:

ক্লান্তি এবং দুর্বলতা
ঘুমাতে অসুবিধা
প্রস্রাবের ধরণে পরিবর্তন (যেমন বর্ধিত ফ্রিকোয়েন্সি, প্রস্রাবের আউটপুট হ্রাস, বা প্রস্রাবে রক্ত)
হাত, পা বা গোড়ালিতে ফোলাভাব
পিঠে বা পাশে ব্যথা
উচ্চ্ রক্তচাপ
বমি বমি ভাব এবং বমি
মুখে ধাতব স্বাদ
ক্ষুধামান্দ্য
নিঃশ্বাসের দুর্বলতা

কিডনি রোগের প্রতিকার:

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করুন: উচ্চ রক্তচাপ কিডনি রোগের একটি প্রধান কারণ, তাই আরও ক্ষতি রোধ করতে আপনার রক্তচাপ নিরীক্ষণ এবং পরিচালনা করা গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে ওষুধ, জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে নিয়মিত চেক-আপ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ করুন: আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে তবে কিডনির ক্ষতি রোধ করতে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

হাইড্রেটেড থাকুন: প্রচুর পানি পান করা শরীর থেকে টক্সিন এবং বর্জ্য পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে, যা কিডনির ক্ষতির ঝুঁকি কমায়।

একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট অনুসরণ করুন: লবণ, চিনি এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট কম থাকে এমন একটি সুষম খাদ্য কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে এবং কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন: নিয়মিত শারীরিক কার্যকলাপ কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করতে, রক্তচাপ কমাতে এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে সাহায্য করতে পারে।

ধূমপান ত্যাগ করুন: ধূমপান রক্তনালীর ক্ষতি করে এবং কিডনি রোগের ঝুঁকি বাড়ায়, তাই ধূমপান ত্যাগ করা অপরিহার্য।

ওষুধ: কিডনি রোগের ধরন এবং তীব্রতার উপর নির্ভর করে, লক্ষণগুলি পরিচালনা করতে, আরও ক্ষতি প্রতিরোধ করতে বা কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করতে ওষুধ নির্ধারণ করা যেতে পারে।

যদি আপনি কিডনি রোগের কোনো উপসর্গ অনুভব করেন তবে একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং চিকিত্সা আরও ক্ষতি প্রতিরোধ করতে এবং ফলাফল উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

কিডনি ভালো আছে কিনা বোঝার উপায়:

কিডনি ভালো আছে কি না জানবেন কিভাবে,

কিডনির স্বাস্থ্যের মূল্যায়ন করার বিভিন্ন উপায় রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

রক্ত পরীক্ষা: রক্ত ​​পরীক্ষা রক্তে ক্রিয়েটিনিন এবং রক্তে ইউরিয়া নাইট্রোজেন (BUN) এর মাত্রা পরিমাপ করতে পারে, যা কিডনি দ্বারা ফিল্টার করা বর্জ্য পণ্য। রক্তে এই পদার্থের উচ্চ মাত্রা কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস নির্দেশ করতে পারে।

প্রস্রাব পরীক্ষা: প্রস্রাব পরীক্ষা প্রোটিন, লাল এবং সাদা রক্ত ​​​​কোষ এবং প্রস্রাবের অন্যান্য পদার্থের মাত্রা পরিমাপ করতে পারে, যা কিডনি ক্ষতি বা রোগ নির্দেশ করতে পারে।

ইমেজিং পরীক্ষা: ইমেজিং পরীক্ষা যেমন আল্ট্রাসাউন্ড, সিটি স্ক্যান, বা এমআরআই কিডনির চিত্র সরবরাহ করতে পারে, যা স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীদের কিডনির আকার এবং আকৃতি মূল্যায়ন করতে এবং কোনো অস্বাভাবিকতা বা বাধা সনাক্ত করতে দেয়।

কিডনি ফাংশন পরীক্ষা: কিডনি ফাংশন পরীক্ষা যেমন গ্লোমেরুলার ফিল্ট্রেশন রেট (GFR) এবং ক্রিয়েটিনিন ক্লিয়ারেন্স পরীক্ষাগুলি পরিমাপ করতে পারে যে কিডনি রক্ত ​​থেকে কতটা বর্জ্য পদার্থ ফিল্টার করছে।

চিকিৎসা ইতিহাস এবং শারীরিক পরীক্ষা: স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীরা কিডনির কার্যকারিতা মূল্যায়নের জন্য চিকিৎসা ইতিহাস, ওষুধ এবং শারীরিক পরীক্ষা করতে পারেন।

আপনি যদি আপনার কিডনির স্বাস্থ্য সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন, তাহলে মূল্যায়ন এবং পরীক্ষার জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। কিডনি রোগের প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং চিকিত্সা আরও ক্ষতি প্রতিরোধ এবং ফলাফল উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

কিডনি সমস্যা: কিডনি রোগের লক্ষণ।

কিডনি রোগের লক্ষণ

কিডনি রোগের লক্ষণগুলি রোগের পর্যায়ে এবং প্রকারের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে এবং কিডনি রোগে আক্রান্ত প্রত্যেকেই প্রাথমিক পর্যায়ে লক্ষণগুলি অনুভব করতে পারে না। যাইহোক, কিডনি রোগের কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

প্রস্রাবের পরিবর্তন: এর মধ্যে রয়েছে ঘন ঘন প্রস্রাব, বেদনাদায়ক প্রস্রাব এবং প্রস্রাবে রক্ত।

ফোলা: পা, গোড়ালি, পা বা হাতে ফোলা, যা কিডনি সঠিকভাবে কাজ না করার কারণে শরীরে অতিরিক্ত তরল জমা হওয়ার কারণে হতে পারে।

ক্লান্তি: পর্যাপ্ত বিশ্রামের পরেও ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করা কিডনি রোগের লক্ষণ হতে পারে।

শ্বাসকষ্ট: কিডনি রোগের কারণে ফুসফুসে অতিরিক্ত তরল জমা হলে শ্বাসকষ্ট বা শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

বমি বমি ভাব এবং বমি: কিডনি রোগের কারণে রক্তে বর্জ্য পদার্থ জমা হওয়ার কারণে বমি বমি ভাব, বমি এবং ক্ষুধা হ্রাস হতে পারে।

চুলকানি: ক্রমাগত চুলকানি, প্রায়ই পায়ে এবং পিঠে, রক্তে বর্জ্য পদার্থ জমা হওয়ার কারণে হতে পারে।

উচ্চ রক্তচাপ: কিডনি রোগ উচ্চ রক্তচাপ সৃষ্টি করতে পারে বা এটি আরও খারাপ করতে পারে এবং উচ্চ রক্তচাপ কিডনির ক্ষতিতেও অবদান রাখতে পারে।

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে সঠিক রোগ নির্ণয় এবং চিকিত্সার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনি রোগের ঘরোয়া প্রতিকার

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা:

ঘরোয়া প্রতিকারগুলি কিডনি রোগের কিছু উপসর্গ উপশম করতে সাহায্য করতে পারে, তবে কোনো প্রতিকার চেষ্টা করার আগে একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। এখানে কিছু ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা সহায়ক হতে পারে:

প্রচুর পানি পান করা: হাইড্রেটেড থাকা কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করতে এবং কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া: সীমিত লবণ এবং প্রোটিন সহ একটি সুষম খাদ্য কিডনির কাজের চাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ: উচ্চ রক্তচাপ কিডনির ক্ষতি করতে পারে, তাই নিয়মিত ব্যায়াম এবং লবণ গ্রহণ সীমিত করার মতো স্বাস্থ্যকর জীবনধারার মাধ্যমে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

রক্তে শর্করার ব্যবস্থাপনা: উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রাও কিডনির ক্ষতি করতে পারে, তাই স্বাস্থ্যকর ডায়েট এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা কিডনির ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

মানসিক চাপ কমানো: দীর্ঘস্থায়ী চাপ উচ্চ রক্তচাপ এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার দিকে পরিচালিত করতে পারে, তাই ব্যায়াম বা ধ্যানের মতো স্ট্রেস পরিচালনা করার উপায় খুঁজে বের করা কিডনি ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি চিকিৎসা চিকিত্সার বিকল্প নয় এবং আপনার যদি কিডনি রোগ থাকে তবে রোগের চিকিত্সা এবং পরিচালনার জন্য আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনি-সমস্যা-বা-কিডনির-ভালো-মন্দ-নিয়ে-চিকিৎসকরা-কি-বলছেন

কিডনি সমস্যা: কিডনির ব্যথা কোথায় হয়?:

কিডনি ব্যথা সাধারণত মেরুদণ্ডের দুপাশে, পাঁজরের খাঁচার নীচে, নীচের পিঠে হয়। ব্যথা ডান বা বাম কিডনি, বা উভয় কিডনিতে অনুভূত হতে পারে এবং কুঁচকি বা পেটে বিকিরণ করতে পারে। এটি একটি নিস্তেজ ব্যথা বা ধারালো, ছুরিকাঘাতের ব্যথা হতে পারে এবং অন্যান্য উপসর্গ যেমন জ্বর, বমি বমি ভাব, বমি এবং প্রস্রাবের পরিবর্তনের সাথে হতে পারে।
যাইহোক, সমস্ত কিডনি সমস্যা বা রোগ ব্যথা সৃষ্টি করে না এবং কখনও কখনও নীচের পিঠে ব্যথা অন্যান্য অবস্থার কারণে হতে পারে। আপনি যদি পিঠের নিচের অংশে কোনো ক্রমাগত ব্যথা বা অস্বস্তি অনুভব করেন, তাহলে সঠিক রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনি রোগ কি ভালো হয়?:

এই প্রশ্নের উত্তর নির্ভর করে কিডনি রোগের কারণ এবং পর্যায়ের উপর। কিছু ক্ষেত্রে, যেমন ডিহাইড্রেশনের মতো অস্থায়ী অবস্থার কারণে তীব্র কিডনি আঘাত, চিকিত্সা এবং অন্তর্নিহিত অবস্থার যথাযথ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কিডনির কার্যকারিতা উন্নত হতে পারে।
অন্যান্য ক্ষেত্রে, যেমন দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ, কিডনির ক্ষতি অপরিবর্তনীয় হতে পারে, তবে চিকিত্সা এবং ব্যবস্থাপনা রোগের অগ্রগতি ধীর করতে পারে, লক্ষণগুলি হ্রাস করতে পারে এবং জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে পারে। যাইহোক, কিছু ক্ষেত্রে, কিডনি রোগ শেষ পর্যায়ে কিডনি রোগে অগ্রসর হতে পারে, যার জন্য কিডনির কার্যকারিতা বজায় রাখার জন্য চলমান ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপন প্রয়োজন।
এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে কিডনি রোগের প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং ব্যবস্থাপনা ফলাফল এবং জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে পারে, তাই আপনার কিডনি স্বাস্থ্য সম্পর্কে আপনার কোনো উদ্বেগ থাকলে, আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনি ইনফেকশনের লক্ষণ:

কিডনি সংক্রমণের লক্ষণ

কিডনি সংক্রমণের লক্ষণগুলি, যা পাইলোনেফ্রাইটিস নামেও পরিচিত, এতে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে:

জ্বর এবং সর্দি
পিঠে বা পাশে ব্যথা, সাধারণত একপাশে
বমি বমি ভাব এবং বমি
প্রস্রাবের জরুরিতা এবং ফ্রিকোয়েন্সি
প্রস্রাবের সময় ব্যথা বা জ্বালা
মেঘলা বা দুর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব
প্রস্রাবে রক্ত ​​(হেমাটুরিয়া)
ক্লান্তি এবং দুর্বলতা
এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে কিডনি সংক্রমণে আক্রান্ত প্রত্যেকে এই সমস্ত লক্ষণগুলি অনুভব করবে না এবং কিছু লোকের কোনও লক্ষণই নাও থাকতে পারে।
যদি আপনার সন্দেহ হয় যে আপনার কিডনি সংক্রমণ হয়েছে, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসার পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, কারণ চিকিত্সা না করা কিডনি সংক্রমণ কিডনি ক্ষতি বা সেপসিসের মতো জটিলতার কারণ হতে পারে।

কিডনি ভালো রাখার উপায়:

কিডনি সুস্থ রাখার উপায়

এখানে আপনার কিডনি সুস্থ রাখার কিছু উপায় রয়েছে:

হাইড্রেটেড থাকুন: প্রচুর পানি এবং অন্যান্য তরল পান করা আপনার শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে এবং আপনার কিডনি সঠিকভাবে কাজ করে।

একটি স্বাস্থ্যকর খাবার খান: লবণ, চিনি এবং চর্বি কম এবং ফল, শাকসবজি, গোটা শস্য এবং চর্বিহীন প্রোটিন সমৃদ্ধ সুষম খাদ্য খাওয়া আপনার কিডনিকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন: নিয়মিত ব্যায়াম আপনার রক্তচাপ কমাতে এবং দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

চিকিৎসা পরিস্থিতি পরিচালনা করুন: আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, বা অন্যান্য চিকিৎসা শর্ত থাকে, তাহলে আপনার কিডনি রক্ষা করার জন্য এই অবস্থাগুলি পরিচালনা করতে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে কাজ করুন।

ধূমপান এড়িয়ে চলুন এবং অ্যালকোহল গ্রহণ সীমিত করুন: ধূমপান আপনার কিডনির ক্ষতি করতে পারে এবং আপনার কিডনি রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। অ্যালকোহল আপনার কিডনির জন্যও ক্ষতিকারক হতে পারে, তাই আপনার গ্রহণ সীমিত করা ভাল।

ওভার-দ্য-কাউন্টার ব্যথা উপশমকারীর অত্যধিক ব্যবহার এড়িয়ে চলুন: আইবুপ্রোফেন এবং অ্যাসপিরিনের মতো ওষুধের অতিরিক্ত ব্যবহার আপনার কিডনির ক্ষতি করতে পারে, তাই নির্দেশ অনুসারে এবং শুধুমাত্র প্রয়োজন হলেই সেগুলি ব্যবহার করা গুরুত্বপূর্ণ।

নিয়মিত চেক-আপ করুন: আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে নিয়মিত চেক-আপ কিডনি রোগের প্রাথমিক লক্ষণ এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা সনাক্ত করতে সাহায্য করতে পারে।

এই অভ্যাসগুলিকে আপনার জীবনধারায় অন্তর্ভুক্ত করে, আপনি আপনার কিডনিকে সুস্থ রাখতে এবং সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করতে পারেন।

কিডনি পরিষ্কার করে এই ৯ খাবার:

কিডনি পরিষ্কারের খাবার।

কিডনি-সমস্যা-বা-কিডনির-ভালো-মন্দ-নিয়ে-চিকিৎসকরা-কি-বলছেন

কিডনি পরিষ্কার করতে 9টি খাবার

বেশ কিছু খাবার আছে যা কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী বলে পরিচিত এবং কিডনি পরিষ্কার করতে সাহায্য করতে পারে। এখানে এমন নয়টি খাবার রয়েছে:

ক্র্যানবেরি: ক্র্যানবেরিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে এবং মূত্রনালীর সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে দেখানো হয়েছে, যা কিডনির জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

ব্লুবেরি: ক্র্যানবেরির মতো, ব্লুবেরিতেও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি থাকে এবং এটি কিডনির প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

আপেল: আপেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে এবং এটি কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে দেখানো হয়েছে।

রসুন: রসুন তার প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত এবং কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

পেঁয়াজ: পেঁয়াজে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কিডনির প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে এবং কিডনি সুস্থ রাখে।

বাঁধাকপি: বাঁধাকপি একটি কম ক্যালোরিযুক্ত সবজি যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে বেশি এবং এটি কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে দেখানো হয়েছে।

ফুলকপি: ফুলকপি হল আরেকটি কম-ক্যালোরিযুক্ত সবজি যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে বেশি এবং কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

লাল বেল মরিচ: লাল বেল মরিচে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি থাকে এবং এটি কিডনি রোগের ঝুঁকি কমাতে দেখা গেছে।

মাছ: কিছু ধরণের মাছ, যেমন স্যামন, টুনা এবং ম্যাকেরেল, ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ এবং কিডনিতে প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই খাবারগুলি কিডনি স্বাস্থ্যকে সমর্থন করতে সাহায্য করতে পারে, তবে সেগুলিকে চিকিত্সা চিকিত্সা বা স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের পরামর্শের বিকল্প হিসাবে বিবেচনা করা উচিত নয়। আপনার যদি কিডনি রোগ থাকে বা আপনার কিডনি স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হন, তাহলে আপনার জন্য সর্বোত্তম পদক্ষেপ নির্ধারণ করতে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

কিডনির সমস্যা র লক্ষণ

কিডনি-সমস্যাগুলির লক্ষণগুলি কিডনিকে প্রভাবিত করে এমন নির্দিষ্ট অবস্থার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে, তবে কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

প্রস্রাবের পরিবর্তন, যেমন ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি, প্রস্রাবের সময় অসুবিধা বা ব্যথা, বা প্রস্রাবের আউটপুট হ্রাস।

প্রস্রাবে রক্ত, যা লাল বা বাদামী রঙের হতে পারে।

ফোলাভাব বা ফোলাভাব, বিশেষ করে চোখ, হাত, পা এবং গোড়ালির চারপাশে।

ক্লান্তি বা দুর্বলতা, বিশেষ করে যদি এটি ব্যাখ্যাতীত হয়।

পিঠে ব্যথা, বিশেষ করে পাঁজরের নিচের অংশে।

ক্ষুধা কমে যাওয়া, বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া।

ঘুমাতে অসুবিধা বা মনোযোগ দিতে সমস্যা।

উচ্চ রক্তচাপ, যার কোনো স্পষ্ট লক্ষণ নাও থাকতে পারে।

আপনি যদি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন, তাহলে মূল্যায়নের জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। কিডনি সমস্যা গুলি গুরুতর হতে পারে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *